Category: Articles

ইন্দোনেশীয় কৃষক ও Luwak Coffee

অনেকের ধারনা অনন্য স্বাদ গন্ধ ও এ্যরোমার জন্য নয়, শুধু এর অনন্য গল্পের কারনেই এই কফি এত বিক্ষাত হয়েছে বা সারা পৃথিবীতে এর চাহিদা এত বেশী বেড়েছে। আমি এর গল্প শুনে অল্প অল্প ভালোবেসেছিলাম তাই ইন্দোনেশিয়া সফরকালে এক পেয়ালা পান করার সুযোগ নিয়েছিলাম যদিও এটি আমার জন্য বিলাসিতা ছিলো তাতে কি পৃথিবী বিক্ষাত কফি বলে কথা!

হিজলের খোঁজে বোটানিক্যাল গার্ডেনে একদিন

এই বাগানে বৃক্ষ জাতীয় ২৯৬ টি প্রজাতি আছে যার মোট উদ্ভিদের সংখ্যা ২৮১০০টি,ঝোপ জাতীয় ৩০০ প্রজাতির উদ্ভিদের সংখ্যা ৮৩৫২টি,লতা জাতীয় ৫৫টি প্রজাতির উদ্ভিদের সংখ্যা ৪৬৫৬টি, তৃণ জাতীয় ২৫৭টি প্রজাতির উদ্ভিদের সংখ্যা ১৫১৭টি,অর্কিড জাতীয় ৮০টি প্রজাতির উদ্ভিদের সংখ্যা ২০০০টি, ক্যাকটাসের সংখ্যা ৪০০০টি এবং গোলাপের সংখ্যা ৭৫০০টি। মোট উদ্ভিদের সংখ্যা ৫৬১২৫টি।

Asian Paradise Flycatcher

লেখা: Mahin Nur. নামটি সরাসরি বাংলায় অনুবাদ করলে দাঁড়ায়, স্বর্গের পাখি । পাখিটির সৌন্দর্য এতটাই স্বর্গীয় যে, একে সত্যিকার অর্থে স্বর্গের পাখি বললেও খুব একটা ভুল হবে না। পাখিটির দেশীয় নাম দুধরাজ। আবার শাহ বুলবুলি নামেও ডাকা হয়। পাখিটির দেহের আকার মোটামুটি ২২সে.মি.।পাখিটির সাথে আমার প্রথম দেখা হয় আমার দাদুবাড়ি ময়মনসিংহে, ব্রহ্মপুত্র নদীর তীরে।

আমাদের তিলা মুনিয়া

অতি পরিচিত গায়ক পাখি তিলা মুনিয়া (Scally-breasted Munia)। বৈজ্ঞানিক নাম Lonchura punctulata. এদেশের শহর-বন্দর-গ্রামে প্রচুর সংখ্যায় দেখা যায়। মুনিয়া বেশ চঞ্চল। এ ডাল থেকে ও ডাল করে বেড়ায়। ফসলের ক্ষেত, মাঠ, নল-খাগড়ার বন, বাগান প্রভৃতি স্থানে ঝাঁকে ঝাঁকে চড়ে বেড়ায়।

হেমন্তের স্পর্শে বৃক্ষ

হেমন্তের স্পর্শ পেতেই গাছের পাতায় যেনো নববধূর গালে হলুদ ছোঁয়া। তরুণীর লাজে রাঙ্গা গালের রঙে রাঙ্গিয়ে উঠে গাছের পাতা তথা শীত প্রধান দেশের সারা বন। হলুদ, লালে ছেয়ে যায় ম্যাপল, ওক, বিচ, চেস্ট নাট আরও এমন নানান প্রজাতির গাছের পাতা। এসময় শুধু পাইন গাছ থাকে নিজের মত, তার এত আবেগ কোথায়?

উদ্ভিদের ফিজিওলজিক্যাল রহস্য

ফুল কেন রঙিন হয় এই ব্যপারে কৌতুহলের অন্ত ছিলো না, এখনো হয়ত অনেকের মনে এই প্রশ্ন জাগতে পারে। ফুল লাল হওয়ার জন্য দায়ী ক্রোমোপ্লাস্ট নামক পিগমেন্ট। ক্রোমোপ্লাস্টে থাকে ক্রোমোফিল আর এটিই হলো উদ্ভিদ এর কোন অঙ্গের বর্নের জন্য দায়ী।

পঙ্খিরাজ ফার্ণ

প্রায় দেড় হাজার কোটি বছর আগের কথা। মহাকাশে দু’টি বিশাল নক্ষত্রের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে দুটি নক্ষত্র ভেঙ্গে চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। ওই ভাঙ্গা অংশগুলো থেকেই কোটি কোটি বছরের বিবর্তনে পৃথিবী...

ফুলের বংশ পরিচয়

বিয়ে-শাদি বলে কথা! আর যাই হোক এটা নিয়ে তো অবহেলা করা যায় না! তাইতো গুরুত্বের সাথে প্রাধান্য দেয়া হয় বংশ পরিচয় উপাধি পদবী ইত্যাকার বিষয় গুলোকে। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় অধিকাংশ...

সামুদ্রিক আগাছা Sargassum

সমুদ্র তার বক্ষে শুধু প্রানীদের আশ্রয় দেয়নি দিয়েছে অনেক উদ্ভিদের আশ্রয়। তাইতো আমরা উপমা দিয়ে থাকি “সমুদ্রের মত বিশাল হৃদয়”। এমনি এক উদ্ভিদ সারগাসাম এই বিশাল সমুদ্রে আশ্রিত যাকে মেক্রো শৈবাল বলা হয়। এটি মুলত বাদামি শৈবাল যা Phaeophyceae শ্রেনী ভুক্ত ও Fucales বর্গের সামুদ্রিক উদ্ভিদ। এদের অসংখ্য প্রজাতি আছে যারা ক্রান্তিয় ও উপক্রান্তিয় সমুদ্রে বসবাস করে। আমাদের সেন্টমার্টিন কোরাল দ্বীপে এদের দেখা যায়।

আমাদের পরিবেশ, প্রতিবেশ ও গ্রীস্মের তাপদাহ

জনজীবন আজ বিপর্যস্ত। ঢাকা সিটিতে অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে উঠা নগরায়নের কারনে আজ আমাদের পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। যেখানে বিশ্বের সব উন্নত নগরীতে পরিকল্পিত ভাবে বৃক্ষের আচ্ছাদন তৈরী করা হয় যার ক্যানপিতে গড়ে উঠে একটি শ্যামল স্নিগ্ধ শহর কিন্তু আমাদের শহরে নতুন রাস্তা, হাউজিং, স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন সরকারী বেসরকারি দপ্তর তৈরি করতে যেয়ে প্রতিবছরই কেটে ফেলা হচ্ছে বহু বছর ধরে বেড়ে উঠা বৃক্ষ। যেখানেই উন্নতির ছোঁয়া লাগছে সেখানেই বৃক্ষ নিধন এ কেমন সভ্যতা! এ কেমন উন্নতি!

Wind flower

আনেমনে নিমোরোজা

বসন্তের শুরুতে ইউরোপের কিছু দেশে ফরেস্ট গুলোতে অল্প সময়ের জন্য বসে তারার মেলা। আমি অধির হয়ে একটা বছর অপেক্ষায় থাকি এই অপার রুপ এক নজর দেখার জন্য। প্রত্যেক বছর ছবি তুলে নিয়ে আসি তবু যেন মনে হয় প্রকৃত রুপ আমার ক্যামেরায় ধরা দেয়নি। বনে মেলা বসানো ফুলটির নাম আনেমনে নিমোরোজা।

বিলুপ্ত প্রায় বাঁশ ও বেতের ঝুড়ি

বাঁশ বা বেতের তৈরী নানাবিধ সামগ্রী আমাদের শিল্প, আমাদের লোকঐতিহ্য l একটা সময় ছিল আমাদের এই লোকসামগ্রী নিত্য দিনের সাংসারিক কাজে ব্যবহৃত হত l গৃহের আসবাব তৈরিতে যেমন বেতের ব্যবহার ছিল তেমনি ছিল বাঁশ দ্বারা নির্মিত ঝুড়ি , কুলা, মাছ ধরা টোপা এমন হরেক রকমের ব্যবহার ছিল যা আজ বিলুপ্তির পথে l

হরেক রকম কচু

কথায় কথায় কচু শব্দটি অনেক তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে ব্যবহার করা হয়। এই কচুর এত গুনাগুন তারপরেও কেন কচু শব্দটিকে ব্যাঙ্গাত্বক ভাবে ব্যবহার করা হয় আমার জানা নেই। কচু দিয়ে ইলিশ রান্না করলে আপনি আমি খুশি হয়ে যাই কিন্তু যখনই কচু শব্দটি আপনাকে আমাকে উদ্দেশ্য করে ব্যবহার করা হয় তখন আমরা তেলে বেগুনে জ্বলে উঠি। কারন হিসেবে এর ব্যখ্যা আমার জানা নেই। তবে কবি গুরু কচুকে বিশেষ সম্মান দিয়ে কবিতা রচনা করতে ভুল করেননি।

কালাগির্দির সাথে সাক্ষাৎ

এভাবেই কালাগির্দির সাথে আমার সাক্ষাৎ। এরপর তিনমাস প্রায় প্রতিদিনই আমাদের সাক্ষাৎ হতো। কখনো ক্যামেরায় ছবি তুলেছি,কখনো মোবাইলে ভিডিও করেছি,কখনো ছবি না তুলে চুপ করে দাঁড়িয়ে পাখিটার নাচানাচি দেখেছি। Black Redstart পাখিটি আমাদের দেশে কালা গির্দি নামে পরিচিত। এটি এদেশে নিয়মিত পরিযায়ী পাখি।

Floralia Brussels festival

১৩ বছর ধরে আয়োজিত হয়ে আসছে “ফ্লোরালিয়া ব্রাসেলস”। এ বছর ২০১৬ বসন্তে ৬ই এপ্রিল থেকে ৬ই মে পর্যন্ত প্রদর্শনী আয়োজিত হচ্ছে। এক্সিবিশনের ৪ সপ্তাহে দর্শকরা উপভোগ করতে পারেন ৫০০ প্রজাতির বালব ফুল যার বিরাট অংশ ৪০০ প্রজাতির রয়েছে মন মোহনীয় টিউলিপ।

কম্পোস্ট ও পটিং সয়েল

সবাই বাগান ও ফুলের ছবি দেন আমি এক নজর গাছের গোড়ায় ফেলি, দেখে নেই গাছের গোড়ায় হিউমিডিটি বা আদ্রতা, মাটি বেলে কিংবা এটেল কিনা এবং মাটিতে কম্পোস্টের কালো রঙ দেখা যায় কিনা। কম ফুল ফোটার জন্য বাংলাদেশের গরম আবহাওয়া যতখানি দায়ী ঠিক ততোখানি সঠিক পুষ্টি না পাওয়া দায়ী। অপুষ্ট গাছে বেশি ফুল বা ফল আশা করা ভুল।

Tridax

প্রকৃতির অলংকার ত্রিধারা

Tridax বলতে এই ফুলের পাপড়ীতে তিনটি খাঁজ বা লোব কে বোঝায় (Holm et al)। বাংলায় বলতে গেলে “শায়িত লতানো তিন লোব বিশিস্ট বা খাঁজ কাটা ফুল”। বাংলায় “ত্রিধারা” নামকরন করার কারন হলো এই উদ্ভিদের পাপড়ীতে তিনটি লোব বিশিস্ট খাঁজ কাটা আর এর উপর ভিত্তি করেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উদ্ভিদ বিজ্ঞানি প্রফেসর ড: কাজী আব্দুল ফাত্তাহ ১৯৭০ সালে এর বাংলা নামকরন করেন “ত্রিধারা”

Lemon balm

লেমন বাম

ফুল বাগানের পাশাপাশি ছোটখাটো একটা কিচেন গার্ডেন করি সব সময়। রান্না ও সবুজ চায়ে সবসময় প্রয়োজন হয় পুদিনা, থাইম, রোজমেরি, সুইট বাজিল, পার্পল বাজিল আর আমার খুব প্রিয় লেমন বাম। অসাধারন লেবুর ঘ্রান সমৃদ্ধ লেমন বাম চা খুব উপাদেয় তাছাড়া এর পাতা থেকে প্রস্তুত আইস টি অথবা টনিক আমার ভিশন প্রিয়।

Oriental Grass Jewel

বাংলাদেশে প্রাপ্ত সবচেয়ে ছোট প্রজাপতি

হঠাৎ বালির মধ্যে ছোট একটা প্রজাপতি উড়তে দেখে দ্রুত কাছে গেলাম এবং বালির মধ্যে শুয়ে পড়লাম এটা কি তা দেখার জন্য। মুহুত্তেই আমার মন আনন্দে ভরে গেল। কারণ বাংলাদেশে প্রাপ্ত সবচেয়ে ছোট প্রজাপতিকে খুঁজে পেয়েছি আমি। এটা এতো ছোট যে চোখে দেখায় কষ্টকর। এরপর খুব সাবধানে ক্যামেরা নিয়ে কিছু ছবি তুলে ফেললাম তারপর সাজিদ ও আরাফাতকে ডাক দিলাম।

পাখি কর্তৃক পরাগায়নের দৃশ্য দেখানো হয়েছে।

উদ্ভিদজীবন ও পলিনেটর

উদ্ভিদের পুষ্পরস সব পলিনেটর পছন্দ করে না। পরাগের জীবনকাল (Longivity) পরাগায়নের জন্য বিশেষ ভাবে গুরুত্বপূর্ণ। সার্থক পরাগায়ন ও নিষেক প্রক্রিয়াটি খুবই জটিল একটি প্রক্রিয়া। বিভিন্ন পরিবেশগত বিষয়ের সাথে পলিনেটর সক্রিয় থাকে যখন এদের সাথে উদ্ভিদের নিবিড় সম্পর্ক গড়ে উঠে তখনই সঠিক কার্যক্রম ঘটে ও ভ্রূণ, বীজ তথা ফলন নিশ্চিত হয়।

error: Content is protected !!